মেঘনায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালন।

কুমিল্লা চট্টগ্রাম বিভাগ

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় ১৭ মার্চ ২০২১ প্রত্যুষে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে শুরু হয় দিবসটি, সকাল ৬ ঘটিকার সময় মেঘনা উপজেলা চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল এ পুষ্পস্তবক অর্পণ করে, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মেঘনা উপজেলা শাখা, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শিশুর স্বাস্থ্য সচেতনতা পুষ্টি ও খাদ্য সম্পর্কে ভিডিও চিত্র উপস্থাপন, সকাল ১১ ঘটিকায় উপজেলা কনফারেন্স রুমে মুক্তিযোদ্ধা সহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে মতবিনিময় ও আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বাদ জোহর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত, প্রার্থনা, এতিমখানা হাসপাতলে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন, বিকেল ৩ ঘটিকায় বঙ্গবন্ধুর জীবনী লেখার বৃদ্ধিতে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, গত ১৩-১৪ মার্চ সীমিত আকারে উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, রচনা, কবিতা আবৃত্তি ও বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রতিযোগিতা, ১৬-১৭ মার্চ সন্ধ্যায় সকল সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মেঘনা উপজেলা শাখার উদ্যোগে উপজেলা বাস কাউন্টার এর পাশে আলোচনা সভা ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান সহ মেঘনা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হয় দিবসটি, এসময় উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসন ৪৯ এর এমপি সেলিনা ইসলাম (সিআইপি), মেঘনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ শফিকুল আলম, মেঘনা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার, মেঘনা উপজেলা নির্বাহি অফিসার প্রবীর কুমার রায়, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুস সালাম, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন শিশির, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলন সরকার, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক জহিরুল ইসলাম খন্দকার, মেঘনা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল মজিদ, মেঘনা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ জালাল আহমেদ, উপজেলা সহকারী ভূমি কামরুল হাসান, মেঘনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গাফফার সহ উপজেলা প্রশাসন পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *